আলোময়.কম হোম,ইসলাম ও বিজ্ঞান, ফিডব্যাক,অংশ নিন fb page

শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০১৩

টর্নেডো সম্পর্কে কিছু তথ্য

টর্নোডো হয় যেভাবেঃ
ভুমি থেকে উষ্ণ বায়ু উপরের দিকে উঠে গিয়ে ঠান্ডা বায়ুর সাথে মিলিত হয়। এতে করে উষ্ণ বায়ু ঠান্ডা হয়ে যায়। আর এর ফলে জলীয় কণা তৈরি হয়। তৈরি হয় বজ্রমেঘ (Thundercloud) যা আরো উপরে উঠতে থাকে। বিভিন্ন স্তরের বায়ুপ্রবাহের কারণে এটি এর স্বাতন্ত্র্য ফানেলাকৃতি ধারণ করে।
টর্নেডো সম্পর্কে কিছু তথ্যঃ
১. টর্নেডো উত্তর গোলার্ধে ঘড়ির কাটাঁর দিকেএবং উত্তর গোলার্ধে  বিপরীত দিকে ঘোরে।
২. টর্নেডো বছরের যে কোনো সময় ঘটতে পারে, তবে মে মাসে বেশি ঘটে।
৩. টর্নেডোর নিদিষ্টি কোন সাইজ নেই। তাদের আকার যে কোনো রকম হতে পারে।
৪. টর্নেডোর বেগ ঘন্টায় ৪০ মাইল থেকে ১১০ মাইল পর্যন্ত রেকর্ডে আছে। তারা অনেক পথ অতিক্রম করে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ঘটাতে সক্ষম।
৫. টর্নেডোর রঙ নির্ভর করে পরিবেশ ও সূর্যের আলোর উপস্থিতির উপর। শুষ্ক পরিবেশে টর্নেডো কিছুটা অদৃশ্য আর সূর্য যদি টর্নেডোর পেছনে থাকে তাহলে দর্শকের চোখে একে কালো মনে হবে।
৬. তাদের গতিপথ যে কোনো দিকে হতে পারে। তবে, সাধারণত, দক্ষিণ থেকে উত্তরে যায়।
৭. এন্টার্কটিকা ছাড়া সব মহাদেরশেই টর্নেডোর উৎপাত আছে।
৮. আমেরিকায়  প্রতি বছর প্রায় ১২০০ টর্নেডো রেকর্ড হয়।
৯. টর্নেডোর ফলে বৃষ্টি, তুষারপাত ও শিলাবৃষ্টি হয়।
সূত্রঃ ১.
২. http://www.diffen.com/difference/Cyclone_vs_Tornado

0 মন্তব্য(গুলি):

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন