আলোময়.কম হোম,ইসলাম ও বিজ্ঞান, ফিডব্যাক,অংশ নিন fb page

মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৩

সূর্যের আকর্ষণে পৃথিবী কেন সূর্যের দিকে চলে যায় না?


আসুন ব্যাপারটি পর্যালোচনা করি।
পৃথিবী সূর্যের চারদিকে পরিক্রমণ করে। আর এটার জন্য সূর্যের মহাকর্ষ বল উল্লেখযোগ্যভাবে দায়ী। কিন্তু তবুও সূর্য পৃথিবীকে নিজের দিকে টেনে নিয়ে যায় না। বরং পৃথিবী তার কক্ষপথেই থেকে যায়।

পৃথিবীর কক্ষপথ সূর্যের মাধ্যাকর্ষন শক্তির দিকের সাথে লম্বভাবে অবস্থিত। পৃথিবী ঘন্টায় ১০৭২৭৮.৮৭ কি.মি বেগে সূর্যের চারদিকে পরিক্রমণ করছে। যদি এর গতিবেগ একটু কম হতো তাহলে পৃথিবী সূর্যের কাছাকাছি চলে যেত। আর যথেষ্ট পরিমাণ কম হলে সূর্যে চলে যেত। আবার গতিবেগ যদি বেশি হত তাহলে এটি সূর্য থেকে দূরে সরে যেত এবং যথেষ্ট বেশি হলে পৃথিবী মুক্তিবেগ (escape velocity) অর্জন করে সৌরজগত থেকে বেরিয়ে যেত।

গ্রহদের সূর্যকে আবর্তনের পথ উপবৃত্তাকার। কেপলারের ২য় সূত্র থেকে আমরা কোন গ্রহের বেগ ও এর সূর্যের নৈকট্য সম্পর্কে ধারণা পাই।  সূর্যের কাছাকাছি আসলে গতিবেগ বাড়ে ও সূর্য থেকে দূরে চলে গেলে বেগ কমে। ফলে, পৃথিবী যখন সূর্য থেকে আরো দূরে চলে যায় তখন এর বেগ কমতে থাকে। ফলে, সূর্যের আকর্ষণ এটিকে  ‍পুনরায়  সূর্যের দিকে টানতে থাকে। ফলে সূত্রানুযায়ী বেগও বাড়তে থাকে। এই বৃদ্ধিপ্রাপ্ত বেগই আবার গ্রহকে দূরে নিয়ে যেতে চায় কিন্তু দূরে গিয়ে বেগ কমে যাওয়ায় আবার এটি সূর্যের দিকে চলে আসে।

একবার সূর্যকে পরিক্রমণ করলে পৃথিবীর এক বছর পূর্ণ হয়। সাধারণত,  পৃথিবী সূর্যের সবচেয়ে কাছে থাকে ২ জানুয়ারি আর সবচেয়ে দূরে থাকে ৪ জুলাই-এ।

সংক্ষেপে: সূর্যের মাধ্যাকর্ষণজনিত ত্বরণ পৃথিবীকে তার দিকে টানে (centripetal force) । আর পৃথিবীর বেগ নিজেকে সূর্য থেকে দূরে নিয়ে যেযতে চায় (centrifugal force)। এই দুই বিপরীতমুখী বলের সমন্বয়ে পৃথিবীর উপবৃত্তাকার পথ অক্ষুন্ন থাকে।

1 মন্তব্য(গুলি):